Green Bangla

Green Bangla Story

January 2020

♥স্বামী আর স্ত্রী হাসাহাসি করছিল এক পর্যায়ে স্ত্রী বললো,,জানেন স্বামী আজকে পাশের বাড়ীর ভাবি এসেছিলেন,,গা ভর্তি গহনা আর দামী শাড়ী পরে।
স্ত্রীর কথা শুনে স্বামীর হাসি মুখটা মলিন হয়ে গেল।

পৃথিবীর সব কষ্টগুলো যেন স্বামীকে গ্রাস করে ফেললো। স্বামী ভারকান্ত হৃদয় নিয়ে জানতে চাইলো, তিনি কেন এসেছিলেন?

কেন আবার আসবে, ঐসব গহনা আর দামী শাড়ি দেখাতে এসেছিল। কারণ আমাদের তো আর এত টাকা নেই তাই! তা তুমি কি বললে ঐসব দেখে?

আমি আবার কি বলবো আমি তো উনার মতন পাগল নই! স্বামী স্ত্রীর কথা শুনে অবাক হয়ে বললো পাগল মানে বুঝলাম না। একটু বুঝিয়ে বলো তো।

#শুনুন উনি যে গহনা গুলো পরেছেন তাতো হারাম টাকায় কেনা দুনিয়ার সামান্য গহনা শাড়ি। এই গহনা, শাড়ী একদিন সাপ হয়ে শরীরে জড়িয়ে থাকবে, আর একটু পরপর ছোবল মারবে। তার বিষাক্ত ছোবল সহ্য করার ক্ষমতা কার আছে বলুন?

আমি দুনিয়ার হারাম টাকায় ভোগ বিলাসিতা করতে চায়না, আমি চাই জান্নাতে আপনাকে নিয়ে জান্নাতের গহনা শাড়ী পরে ভোগ বিলাসিতা করতে। আমি তো সেই দিনের অপেক্ষায় আছি, দুনিয়ার এই সামান্য জিনিষের প্রতি আমার বিন্দু মাত্র মোহ নেই। আর তা ছাড়া আমি তো দুনিয়ার শ্রেষ্ঠ জিনিষ তো পেয়েছি আর কি চাই বলুন।

স্বামী আগ্রহ নিয়ে বললো, কি পেয়েছো এত দামী জিনিষ? স্ত্রী মুচকি হাসি দিয়ে বললো কেন আপনিই তো সেই দামি জিনিষ! আপনার চাইতে দামি কিছু আর আমার কাছে আছে নাকি! পৃথিবীর সবকিছু ছাড়তে পারি শুধু আপনার জন্যে।

স্ত্রীর কথা শুনে স্বামী অবাক তো হলোই সাথে খুশীও হলো অসম্ভব। দুচোখের পানি ছেড়ে দিয়ে বললো, জানিনা মালিক তোমায় কোন কাজের বিনিময়ে আমার জীবন সঙ্গী করে দিয়েছেন। সত্যিই আজ আমি খুব গর্বিত তোমার মত স্ত্রী পেয়ে.........♥♥♥♥

Facebook থেকে নেয়া :-Nilima
Green Bangla
Green Bangla


চারটি গরু

একটা বিখ্যাত গল্প আছে। কেউ কেউ হয়ত শুনে থাকবেন। গল্পটা চারটি গরুকে নিয়ে৷ তিনটি কালো, একটি সাদা৷ তারা একটা শ্বাপদসংকুল এলাকায় বাস করতো৷ এজন্য নিরাপত্তার খাতিরে তারা একসাথে থাকত এবং একে অপরের প্রতি সতর্ক দৃষ্টি রাখতো৷ যার ফলে তারা টিকে ছিল৷ একদিন কালো তিনজন একত্র হল এবং বলল এই সাদা গরুটার জন্য আমরা ধরা পড়ে যাব৷ আমরা কালো বলে রাতের বেলা শত্রু আমাদের দেখতে পায় না, কিন্তু তাকে দেখতে পায়৷ চল ঐ গরুটাকে আমরা পরিত্যাগ করি৷ তারপর আমরা তিনজন একসাথে থাকবো৷ যেমন কথা তেমন কাজ৷ সেদিন থেকেই কালো গরুগুলো সাদাটাকে বয়কট করল, তিনজন একপাশে থাকত আর বেচারা সাদা গরু আরেক পাশে৷ সেখানকার নেকড়ে এই গরুদের মধ্যে অনৈক্য বুঝে ফেললো এবং সে সাদা গরুটার উপর ঝাঁপিয়ে পড়লো৷ যখন নেকড়ে সাদা গরুটার গোশত খুলে খুলে খাচ্ছিল, তখন কালো গরুগুলো কোন বাধা দিলনা৷ তারা তাকিয়ে তাকিয়ে তাদের ভাইকে টুকরো টুকরো হতে দেখছিল৷ পরের রাতে নেকড়ে কালো গরুগুলো উপর আক্রমণ করলো, কারণ তাদের শক্তি কমে গেছে৷ এজন্য নেকড়ে একটা কালো গরুকে ছিনিয়ে নিতে সক্ষম হলো৷ পরের রাতে নেকড়ের জন্য কাজটা আরো সহজ হয়ে গেল, কারণ গরু আছেই মাত্র দুটো৷ নেকড়ে খুব সহজে আরেকটা গরু খেয়ে নিল৷ শেষ রাতে গরু বাকি রইল মাত্র একটা৷ গরুটা ভয়ে এদিক ওদিক ছুটোছুটি করলো। কিন্তু তার কোন সাহায্যকারী নেই৷ নেকড়ে বুঝল গরুটা দৌড়াদৌড়ি করে হাঁপিয়ে একসময় পড়ে যাবে, তাই সে মনের আনন্দে পায়চারি করতে লাগলো৷ সময় সুযোগমত সে গরুটার উপর ঝাঁপিয়ে পড়লো৷ জীবনের শেষ মুহূর্তে এসে গরুটা একটা কথা বলেছিল, খুবই শিক্ষণীয় কথা৷ সে বলেছিল, আমিতো সেদিনই খাদ্য হয়েছি, যেদিন সাদা গরুটাকে খাওয়া হয়েছে। অর্থাৎ গরুটা বুঝতে পেরেছিল, যেদিন সে সাদা গরুটাকে সাহায্য করেনি, সেদিনই সে নিজের মৃত্যুর চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে।
Green Bangla
Green Bangla

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget